bangla music

bangla music

জাতীয়

প্রেমের বিয়ে, তালই ডাকা নিয়ে বর-কনে পক্ষের সংঘর্ষে আহত ২০

আহতরা হলেন- স্বপন বিশ্বাস (২৭), রাজন বিশ্বাস (২৫), লালমোহন বিশ্বাস (৬৫), জিতেশ বিশ্বাস (৩৫), দেবেন্দ্র বিশ্বাস (৪০),নিরঞ্জন বিশ্বাস (৪৫), হিরণ বিশ্বাস(৩০),রেনু বিশ্বাস (৪৪), সাজন বিশ্বাস (২২), ধরণী বিশ্বাস(৮০),বনমালী দেবনাথ (৩৪), বিপুল দেবনাথ (২৮), রবীন্দ্র দেবনাথ (৪০),প্রদীপ দেবনাথ আ(৩০),

রুহিনী দেবনাথ (৬০), রেখা দেবনাথ (৩৫), ঝন্টু দেবনাথ (৩৫) ও বাবুল দেবনাথ (৩২)। আহতদের মধ্যে ৫ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেটে পাঠানো হয়েছে।জানা যায়, উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের পুরাতন কর্ণগাও গ্রামের তরুণ রাজন বিশ্বাসের সঙ্গে একই গ্রামের সান্ত্বনা দেবনাথের দীর্ঘ এক বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক

চলছিল। এক বছরের প্রেম ভালোবাসার পর তারা কনে পক্ষের পরিবারের সম্মতি না পেয়ে পালিয়ে আদালতের মাধ্যমে বিয়ে করে। দুই জন দুই বংশের হওয়ার কারণে কনের পরিবার এ বিয়ে মেনে নেয়নি। রাজন ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে আদালতে বেশ কয়েকটি মামলা দায়ের করে।

রোববার (৫ ডিসেম্বর) সকালে দুই পরিবারের দ্বন্দ্ব সালিশে মীমাংসা করার জন্য রাজনের ভাই কনের বাড়িতে গেলে তালই ডাকা নিয়ে বিবাধে জড়িয়ে যায়। এক পর্যায়ে কনে পক্ষ ও বর পক্ষের লোকজন একে অন্যের প্রতি ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় উভয় পক্ষের ২০ জন আহত হন। আহতের মধ্যে ৫ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী হাসাপাতালে পাঠানো হয়েছে। বর পক্ষের লোকজনের অভিযোগ দুই বংশের দ্বন্দ্ব ও পালিয়ে বিয়ের করার জন্য এ ঘটনা ঘটেছে

কনে পক্ষের আহত ব্যক্তি সাজন দেবনাথ বিয়ে নিয়ে দ্বন্দ্বের কথা স্বীকার করেন। অফিসার দিরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত ডা. বেলায়েত হোসেন বলেন, যাদের হাড় ভেঙেছে তাদের সিলেটে পাঠানো হয়েছে। বাকীরা দিরাইয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন।দিরাই ভারপ্রাপ্ত ওসি আকরাম আলী জানান, পারিবারিক দ্বন্দ্বের জেরে এঘটনা ঘটেছে। কোনো পক্ষ মামলা করেনি।